Friday, March 27th, 2020




সবজির বাজারে স্বস্তি

পণ‌্যের সরবরাহ থাকায় ও ক্রেতার সংখ‌্যা তুলনামূলক কম হওয়ায় রাজধানীর বাজারে কমেছে সবজির দাম। বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে প্রায় প্রতিটি সবজির দামই কেজিতে ১০ টাকা করে কমেছে। তাতে ক্রেতাদের মধ‌্যে কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে।

তবে করোনাভাইরাসের কারণে লেবু, থানকুনি পাতার চাহিদা বেশি থাকায় পণ‌্য দুটির দাম একটু বাড়তি।

শুক্রবার (২৭ মার্চ) সকালে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী, শনিরআখড়া, কাজলা, দনিয়া বাজার ঘুরে দেখা যায়, গত সপ্তাহে যে সবজির দাম ছিল ৪০ থেকে ৫০ টাকা, তা আজ ১০ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে। অন্যদিকে বাজারে পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকায় কমেছে মাছের দাম। ডিমের দামও কমেছে হালিতে ৩ টাকা। গরুর মাংসের দাম কেজিতে ১০ টাকা কমলেও কিছুটা বেড়েছে পোলট্রি মুরগির দাম।

বাজারে বেগুন, লাউ, পেঁপে, মুলা আগের সপ্তাহের তুলনায় কমে বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকা কেজি দরে। করলা, বরবটি, ঢেঁড়শ, পটলের দাম কমে হয়েছে ৪০ টাকা। বাঁধাকপি প্রতি পিস ২০ টাকা, ফুলকপি ১৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, যা গত সপ্তাহে ছিল ৩৫ ও ২৫ টাকা। চিচিঙার কেজি ২৫ টাকা, গত সপ্তাহে ছিল ৩৫ টাকা। শিমের কেজি ১০ টাকা কমে হয়েছে ৩০ টাকা। কাঁচা কলার হালি ২০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৩০ টাকা। কুমড়া আকার অনুযায়ী বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৪৫ টাকা। মরিচ ৫০ টাকা থেকে কমে বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা কেজি দরে। গাজর, শসা বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকা কেজি দরে। টমেটোর কেজি নেমেছে ১৫ টাকায়। তবে আগের দাম ২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে আলু।

পালংশাক, কলমিশাক ৫ টাকা করে আঁটি, পুঁইশাক, লাউশাক বিক্রি হচ্ছে ১০ টাকা আঁটি। আকারভেদে লেবুর হালি বিক্রি হচ্ছে ২৫ থেকে ৩৫ টাকা। আর থানকুনি পাতার আঁটি বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকা করে।

চিটাগাংরোড থেকে সবজি কিনতে যাত্রাবাড়ী এসেছেন স্থানীয় ব্যবসায়ী সাদির মিয়া। কথা হয় তার সঙ্গে। তিনি বলেন, আজকে বাজারে সবজির দাম কম। কেজিতে প্রায় ১০ টাকা করে কমেছে। আগে এসে সবজি না পেয়ে ফিরে যেতে হয়েছে অথবা বেশি দামে কিনতে হয়েছে। তবে আজ কম দামেই সবজি নিতে পেরেছি।

যাত্রাবাড়ীর ব্যবসায়ী দুলাল মিয়া জানান, বাজারে ১০০ কেজির জায়গায় পণ‌্য এসেছে ৩০০ কেজি। তবে ক্রেতা কম। তাইতো সবজির দাম কমেছে। অল্প লাভেই বিক্রি করছি। এতে আমরাও সন্তুষ্ট, ক্রেতারাও সন্তুষ্ট।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে আগের সপ্তাহের তুলনায় মাছের দামও কমেছে। গত সপ্তাহে বিক্রি হওয়া ১৩০ টাকার তেলাপিয়া বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা কেজি, পাঙ্গাস ১২০ টাকা, রুই ২৪০ থেকে ২৬০ টাকা, শিং মাছ ২৫০ থেকে ৪০০ টাকা, পাবদা ৩০০ টাকা, চাষের কই ১৩০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। তবে দেশি মাছ বিক্রি হচ্ছে আগের দামেই।

গত সপ্তাহে ৩৫ টাকা হালিতে বিক্রি হওয়া মুরগির ডিম (লাল) এখন ৩২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর এক সপ্তাহ আগে ৮০ টাকায় বিক্রি হওয়া দেশি পেঁয়াজ অর্ধেকে নেমে ৪০ টাকায়, ভারতীয় পেঁয়াজ ৩৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। অন‌্যদিকে দেশি রসুন ৮০ টাকা আর ভারতীয় রসুন বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা করে।

এদিকে গরুর মাংসের দাম কেজিতে ১০ টাকা কমে ৫৭০ টাকায় বিক্রি হলেও পোলট্রি মুরগির দাম কেজিতে বেড়েছে ১০ টাকা। এ সপ্তাহে বাজারে তা বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকা কেজিতে। পাকিস্তানি মুরগির দাম ২০ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ২৪০ টাকা, ১৮০ টাকার লেয়ার ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে দেশি মুরগি আগের দামেই সাড়ে ৪শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

Advertisement