Thursday, March 26th, 2020




আমরা কাউকে সংক্রমিত করবো না, নিজেও সংক্রমিত হবো না: তাবিথ

ঢাকা: ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল বলেছেন, করোনা ভাইরাস বা কোভিড-১৯ মোকাবেলায় সরকার ১০দিন সাধারণ ছুটি দিয়েছে। এই ১০ দিন আমরা যে যেখানে আছি সেখানে অবস্থান করবো। আমরা কাউকে সংক্রমিত করবো না, নিজেও সংক্রমিত হবো না। সুতরাং আগামী দশ দিন আমরা সবকিছু বন্ধ (লকডাউন) করে রাখবো। বৃহস্পতিবার এক ভিডিও বার্তায় তিনি এ আহ্বান জানান।

তাবিথ আরও বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ওষুধের কথা শোনা যাচ্ছে, করোনাভাইরাসকে কিউর করার জন্য। ব্যাপারটি সত্য নয়। টেস্ট পেইজে বলা হচ্ছে যে, করোনা প্রতিরোধে ম্যালেরিয়ার ড্রাগগুলো ব্যবহার হতে পারে। তবে কেউ নিজ উদ্যোগে এসব ওষুধ নেবেন না। ওষুধ নেয়ার আগে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নেবেন। অনেকেই এই রোগে আগামীতে আক্রান্ত হতে পারি। তাই আমরা চাচ্ছি এটাকে একটা দীর্ঘ মেয়াদি অবস্থায় নিয়ে যাওয়ার জন্য। যাতে করে আমাদের চিকিৎসা ব্যবস্থার ওপর চাপ না পরে।

তিনি বলেন, করোনা ভাইরাস নিয়ে দেশের মানুষ যখন ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে ঠিক এই সময়ে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি অত্যন্ত আনন্দের। উনার মুক্তির কারণে আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে এই মহামারী থেকে মুক্তি পেতে পারব। বুধবার প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের পর আমি বেশ কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলেছি। দেশের এমন পরিস্থিতিতে উনার এই ভাষণ থেকে বুঝা গেছে এতে একটু ঘাটতি রয়েছে। আমরা জানতে পেরেছি দেশে ১৩ হাজার টেস্ট কিট আছে আরও ৩০ হাজার টেস্ট কিট দেশে আনা হচ্ছে। তবে এই টেস্ট কিটগুলো কবে নাগাদ দেশে আসবে এসব যদি জানতাম তাহলে আরও কিছুটা স্বস্তিতে থাকতাম।

তাবিথ বলেন, আমাদের বলা হয়েছে রাজধানীর ১০টি হাসপাতালে এবং দেশের অন্যান্য জেলার বিভিন্ন হাসপাতালে অনেকগুলো আইসোলেশন বেড ও করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। কিন্তু এখনো বলা হচ্ছে না ওই সকল আইসোলেশন বেডগুলেতে আইসিইউর ব্যবস্থা আছে কি-না। আমরা শুনতে পেলাম রপ্তানীমূখী শিল্পের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। আমরা আরো জানতে চাই রপ্তানীমূখী শিল্প ছাড়াও দেশে যেসকল শিল্প আছে তাদের ব্যাপারে কত টাকা বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে।
একই সঙ্গে গত দুই মাস ধরে যে দুটি দাবি আমি জানিয়ে আসছি যে, পানি ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানো যাবে না। কিন্তু ঠিকই এসবের দাম বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। যদিও এখন বলছে এই বিলগুলো জুনের আগে পরিশোধ করতে হবে না। আমি মনে করি আগে এসবের দাম কমিয়ে তারপর বিল চার্জ করা প্রয়োজন ছিল।

সশস্ত্র বাহিনীকে ধন্যবাদ জানিয়ে বিএনপির এই নেতা বলেন, তারা এই মহাবিপদের সময় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। আমি মনে করি সরকারের বেসরকারি খাতকে আহবান জানানো উচিত। বিশেষ করে চিকিৎসা সেক্টরে সহযোগিতা করার জন্য। আর কিভাবে সহযোগিতা করা যায় সে বিষয়টাও পরিস্কার করা দরকার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

Advertisement