Tuesday, March 24th, 2020




প্রাপ্য সেই মুক্তি তিনি পেয়েছেন : মির্জা ফখরুল

সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেওয়ার সরকারি সিদ্ধান্তে বিএনপি নেতাকর্মীরা স্বস্তিবোধ করছেন বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ মঙ্গলবার বিকেলে গুলশান কার্যালয়ে স্থায়ী কমিটির বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আমরা তার মুক্তির জন্য আন্দোলন করেছি, আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের চেষ্টা করেছি। দেশনেত্রীর পরিবার উন্নত চিকিৎসার জন্য তার সাময়িক মুক্তির জন্য আবেদন করেছিলেন। কিন্তু তার মুক্তির ক্ষেত্রে দুটি শর্ত দেওয়া হয়েছে। তাকে বাসায় থেকে চিকিৎসা নিতে হবে। এটা আমাদের কাছে ঠিক বোধগম্য নয়। কারণ পরিবার উন্নত চিকিৎসার জন্য আবেদন করেছেন। যাই হোক দেশের মানুষ এবং বিএনপির নেতাকর্মীরা আজকে স্বস্তিবোধ করছেন।’

‘দীর্ঘকাল পরে আজকে দেশনেত্রী খালেদা জিয়া আইনগত ভাবে, সাংবিধাইনকভাবে তার যেটা প্রাপ্য সেই মুক্তি তিনি পেয়েছেন। আমরা আশা করি, ঠিক সময়েই কারাগার থেকে বেরুতে পারবে’, বলেন মির্জা ফখরুল।

জনগণ ও নেতাকর্মীদের কাছে অনুরোধ জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘খুব স্বাভাবিক দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন-সংগ্রাম করেছেন দেশনেত্রীর মুক্তির জন্য। আজ মুক্তি পাচ্ছে এজন্য আপনারা আবেগ আপ্লুত হবেন। তাকে এক নজর দেখার জন্য কাছে যাওয়ার চেষ্টা করবেন। কিন্তু আজকে সমগ্র বিশ্বে যে ভয়ঙ্কর মহামারি করোনাভাইরাস, যাতে হাজার হাজার মানুষ মারা গেছে। লক্ষ লক্ষ মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। বেশির ভাগ দেশ লকডাউন করা হয়েছে। বিলম্বে হলেও বাংলাদেশে কিছু ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে, তবে লকডাউন করা হয়নি। এই অবস্থার প্রেক্ষিতে খালেদা জিয়া যদি বেরিয়ে আসেন নেতাকর্মীরা আবেগের বশবর্তী না হয়ে সবার নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে শান্ত থাকতে হবে, দূরে থাকতে হবে।’

বিএনপির জ্যেষ্ঠ এই নেতা বলেন, ‘বিএসএমএমইউ হাসপাতালের সামনে ও ম্যাডামের বাসভবনের সামনে ভিড় করবেন না। আলাদাভাবে থাকার বিষয়কে গুরুত্ব দিতে হবে।’

এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আগেই থেকে খালেদা জিয়ার ব্যাক্তিগত চিকিৎসকরা তাকে দেখছেন। আমরা তাদের সঙ্গে কথা বলেছি। কীভাবে বাসায় চিকিৎসা শুরু করা যায় সেটাও আমরা ব্যবস্থা রাখছি। তবে ম্যাডামের সিদ্ধান্তের ওপরই নির্ভর করবে তিনি কি হাসপাতালে চিকিৎসা নেবেন নাকি বাসায় চিকিৎসা নেবেন।’

এর আগে বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক হয়। বৈঠকে স্কাইপেতে যুক্ত ছিলেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। বৈঠকে বিএনপি মহাসচিব ছাড়াও আরও উপস্থিত ছিলেন, দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান প্রমুখ।

বিএএমএমইউ হাসপাতাল ও খালেদা জিয়ার বাসভবনের সামনে জড়ো না হওয়ার নির্দেশ

বিএসএমএমইউ হাসপাতাল ও খালেদা জিয়ার গুলশানের বাসভবনের সামনে দলীয় নেতাকর্মীদের জড়ো না হওয়ার নির্দেশ দিয়েছে বিএনপি। দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তি এ কথা জানানো হয়।

বিবৃতিতে রিজভী বলেন, ‘বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা যেন বিএসএমএমইউ হাসপাতালের সামনে ও গেটের ভেতরে জমায়েত না হন। এই জমায়েতের কারণে চলমান করোনাভাইরাস মহামারির ভয়াবহ বিপর্যয়ের সময়ে দেশনেত্রী খালেদা জিয়াসহ হাসপাতাল সংশ্লিষ্টরা এবং জমায়েত হওয়া দলীয় নেতাকর্মীরা উচ্চ ঝুঁকিতে পড়তে পারেন। তাই সকল নেতাকর্মীকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার আরোগ্য কামনা এবং করোনাভাইরাসের মরণছোবল থেকে দেশবাসীসহ বিশ্ববাসীকে রক্ষার করতে মহান রাব্বুল আলামীনের কাছে দোয়া করার জন্য অনুরোধ জানানো হলো।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

Advertisement