Sunday, March 22nd, 2020




অনলাইন ব্যাংক জালিয়াত চক্রের ৩ সদস্য গ্রেপ্তার

অনলাইন জালিয়াত চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) বিভাগ। গত শুক্রবার কক্সবাজার ও ঢাকার যাত্রাবাড়ী থেকে দুজনকে, পরের দিন ফরিদপুর থেকে আরও একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন-সাইবার ব্যাংক প্রতারক চক্রের প্রধান মামুন তালুকদার। এ ছাড়া তার দুই সহযোগী রাজু ফারাজী ও মো. মিঠু মৃধা।

আজ রোববার বিষয়টি নিশ্চিত করে সিটিটিসি’র অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘এই ঘটনায় ধানমন্ডি থানায় মামলা করা হয়েছে। গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের আজ চার দিনের পুলিশ রিমান্ডের আবেদন করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘গত শুক্রবার সাইবার নিরাপত্তা ও অপরাধ বিভাগের সোস্যাল মিডিয়া টিম মামুন তালুকদারকে কক্সবাজারের একটি হোটেল থেকে ভোর ৫টার দিকে গ্রেপ্তার করে। চলমান অভিযানে সেদিনই তার দুই সহযোগীর অন্যতম একজন রাজু ফরাজীকে ঢাকার যাত্রাবাড়ি থেকে সন্ধ্যা ৭টার দিকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরের দিন শনিবার মো. মিঠু মৃধাকে ফরিদপুরের ভাঙা থেকে ভোর ৫টার দিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।’

এডিসি নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘তাদের গ্রেপ্তারের সময় ব্যাংকিং প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত একটি এক্সিও গাড়ি, ৭টি বিশেষ অ্যাপযুক্ত মোবাইল ফোন, বেশকিছু ভুয়া রেজিস্ট্রেশনকৃত সিমকার্ড, একাধিক ব্যাংক, বিকাশ, নগদ ও স্ক্রিল অ্যাকাউন্ট জব্দ করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা অপরাধের বিষয়টি স্বীকার করেছেন।’

বেশ কিছুদিন মাস যাবৎ তারা অভিনব ও সুনিপুণ কায়দায় প্রতারণা করে আসছিল। বিভিন্ন ডায়লার অ্যাপ দিয়ে কয়েকটি ব্যাংকের হেড অফিসের কার্ড ডিভিশনের মোবাইল নম্বর স্পুফ করে শাখা-ম্যানেজারদের কল দিতেন তারা। এরপর আগের মাসের নতুন কার্ড ব্যবহারকারীদের নাম, কার্ড নম্বর এবং মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করতেন।

পরে প্রতারকরা ব্যাংকের কাস্টমার কেয়ার এজেন্ট সেজে গ্রাহকদের কল করে বলতেন, তারা ব্যাংক থেকে তার নতুন কার্ডটি অ্যাক্টিভ করা বা অন্য কিছু ফিক্স করার জন্য কল করেছে। এরপর চক্রটি কৌশলে স্পুফড মোবাইল কলের মাধ্যমেই গ্রাহকদের কার্ডের মেয়াদ, ৩ থেকে ৪ ডিজিটের সিভিভি কোড এবং প্রয়োজন সাপেক্ষে মোবাইলের ওটিপি সংগ্রহ করে গ্রাহকদের কার্ড থেকে টাকা/ডলার প্রতারকদের লন্ডনভিত্তিক ই-কমার্স অ্যাপ স্ক্রিল অ্যাকাউন্ট, বিকাশ বা নগদে ট্রান্সফার করে। পরে এটিএম বুথ বা বিকাশ বা নগদ এজেন্ট থেকে ক্যাশ আউট করতেন তারা।

দেশের একাধিক শীর্ষ স্থানীয় ব্যাংকের শতাধিক গ্রাহকদের অর্ধ কোটি টাকা চুরি যাওয়ার পর কয়েকটি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সিটিটিসি বিভাগে অভিযোগ জানান। পরে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রতারক চক্রকে শনাক্ত করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

Advertisement