Wednesday, February 26th, 2020




চাঞ্চল্যকর তথ্য দিচ্ছে পাপিয়া

টাকার জোরে নরসিংদী যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক পদটি বাগিয়ে নিয়েছিলেন শামীমা নূর পাপিয়া ওরফে পিউ। অল্প দিনেই আঙুল ফুলে কলাগাছ হয়েছেন। দেশে-বিদেশে গড়েছেন বিপুল সম্পদ। রিমান্ডে থাকা পাপিয়া ইতিমধ্যে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন গোয়েন্দাদের। থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককে একাধিক ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট রয়েছে বলে তিনি প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর ধারণা, তিনি দেশে অবৈধভাবে টাকা উপার্জন করে বিদেশে পাচার করেছেন। থাইল্যান্ড ছাড়া আর কোন দেশে তার টাকা রয়েছে তা খতিয়ে দেখছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী।

এদিকে পাঁচতারকা হোটেলে গড়ে তোলা পাপিয়ার অপরাধের ডেরায় কারা যেতেন তারও তথ্য আসছে জিজ্ঞাসাবাদে। আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সূত্র জানিয়েছে, ব্যবসায়ী, রাজনীতিক, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিসহ নানা পেশার গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের যাতায়াত ছিল সেখানে। সেখানে যাওয়া ব্যক্তিদের তালিকা অনেক দীর্ঘ। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পাপিয়া অস্ত্র ব্যবসা নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন তদন্ত সংশ্লিষ্টদের। তার অপকর্মের দুই সহযোগী রাকিব ও সুমন সিলেটের কানাইঘাট সীমান্ত দিয়ে ভারত থেকে অস্ত্র দেশে আনতেন। এরপর এসব অস্ত্র তারা ঢাকায় ডিলারদের কাছে পৌঁছে দিতেন। ঢাকার একাধিক অস্ত্রের ডিলারের সঙ্গে তার যোগাযোগ রয়েছে। পার্শ্ববর্তী দেশ থেকে রিভলভার, একে-২২ ও কাটা রাইফেল নিয়ে এসে ঢাকার ডিলার ও খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রয় করতো তার সহযোগীরা। পুরো বিষয়টি দেখভাল করতেন পাপিয়া। সিলেটের এক ব্যবসায়ীর সঙ্গে পরিচয়ের সূত্র ধরেই অস্ত্র ব্যবসায় জড়িয়েছেন পাপিয়া। ইতিমধ্যে ওই ব্যবসায়ীর নাম জানতে পেরেছেন তদন্ত সংশ্লিষ্টরা। পাপিয়া গ্রেপ্তার হওয়ার পরই তিনি গা-ঢাকা দিয়েছেন। তাকে খুঁজছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। সেইসঙ্গে পাপিয়ার সহযোগী সুমন ও রাকিবকে খুঁজছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। এছাড়াও পাপিয়ার অপকর্মের সহযোগী এই সুমন কক্সবাজার থেকে ইয়াবা ঢাকায় নিয়ে আসতেন। সরবরাহ করা হতো ঢাকাসহ সারাদেশের বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে। এসব ইয়াবা বিভিন্ন তারকার হোটেলে সরবরাহ করা হতো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

Advertisement