Thursday, February 13th, 2020




রংপুরে সংবর্ধিত হয়েছেন বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক আকবর আলী

নিজ জেলা শহর রংপুরে সংবর্ধিত হয়েছেন অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ী দলের অধিনায়ক আকবর আলী। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে রংপুর পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে তাকে সংবর্ধনা দেয় জেলা প্রশাসন ও জেলা ক্রীড়া সংস্থা। এ সময় ক্রিকেটে আরও বেশি সাফল্য চান বলে নিজের অনুভূতি জানান আকবর।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আকবর বলেন, ‘বাংলাদেশ ক্রিকেটের এটাই যেন শেষ সাফল্য না হয়। এই সাফল্যের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে। তা হলেই বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে। সব অবস্থায় দলকে সর্মথন দিতে হবে।’

যুবা বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ফাইনালে ভারতকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়নের ট্রফি এসেছে রংপুরের আকবর আলীর হাত ধরে। তাই সকাল থেকেই এই ক্রিকেট বীরকে বরণ করে নিতে রংপুর হয়ে উঠেছিল উৎসবের নগরী। রাত থেকে পাড়া মহল্লা, নগরীর মোড়ে মোড়ে আলোচনার বিষয়বস্তু ছিল আকবর আলী। বিশ্বজয়ের পর যে এটাই তার প্রথম নিজ জেলায় সফর।

‘আকবর দ্য গ্রেট’ খ্যাত উনিশ দলের অধিনায়কের সোনালী দিনগুলো কেটেছে এই রংপুর শহরের পশ্চিম জুম্মাপাড়া এলাকায়। তাকে বরণ করে নিতে উৎসবের আমেজ ভরপুর ছিল পুরো রংপুর।

সকাল থেকে কয়েকশ মোটরসাইকেল, মাইক্রোবাস, পিকআপে কয়েক হাজার আকবর প্রেমী সৈয়দপুর বিমান বন্দরে যান। সৈয়দপুর বিমানবন্দর থেকে রংপুরে আসার পথে মোড়ে মোড়ে হাত উচিয়ে ও ফুল ছিটিয়ে আকবরকে সংবর্ধিত করেন রাস্তার দুপাশে দাঁড়িয়ে থাকা হাজারও মানুষ।

ব্যান্ডপার্টির সুরেলা বাদ্যের তালে তালে তাকে বরণ করে নেওয়া হয়। রংপুর পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে জেলা প্রশাসন ও জেলা ক্রীড়া সংস্থা আয়োজিত গণসংবর্ধনায় ভালোবাসার ফুল, শুভেচ্ছায় সিক্ত হন আকবর। এ সময় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে আকবর আলীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।

এ সময় বক্তব্য দেন জেলা প্রশাসক আসিব আহসান। তিনি বলেন, ‘রংপুরের কৃতি সন্তান আকবরের হাত ধরে যে সম্মান এসেছে, এজন্য পুরো দেশবাসী গর্বিত।’

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন রংপুরের সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ছাফিয়া খানম, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক অ্যাডভোকেট আনোয়ারুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মমতাজ উদ্দিন আহমেদ প্রমুখ।

পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে গণসংবর্ধনা শেষে আকবর জুম্মাপাড়াস্থ নিজ বাড়িতে যান। এ সময় স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর সেকেন্দার আলীর নেতৃত্বে সেখানেও শত শত মানুষ তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

নিজ বাড়িতে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন আকবর আলী। তিনি বলেন, ‘রংপুরের মানুষ আমাকে এত ভালোবাসা দেবে এটা স্বপ্নেও কল্পনা করিনি। সত্যি এখানকার মানুষের ভালোবাসায় আমি অভিভূত।’

আবকর আলীর বাবা মোহাম্মদ মোস্তফা তার অনুভূতি ব্যক্ত করে বলেন, ‘আমার ছেলের হাত ধরে এই বিজয় আসায় আমি খুব খুশি। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিকেএসপি, ক্রিকেটবোর্ডসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।’

বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে রওয়ানা দিয়ে দুপুর সাড়ে ১২টায় সৈয়দপুর বিমানবন্দরে আসেন যুব ক্রিকেটের অধিনায়ক আকবর আলী। সেখানে তাকে অভ্যর্থনা জানান রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফাসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ও সুধিমহল। পরে সেখান থেকে তাকে কার, মাইক্রো, মোটর সাইকেলের বিশাল বহরে করে রংপুরে আনা হয়। তার নিজ বাড়িতে যাওয়ার পথে নগরীর কৈলাস রঞ্জন স্কুল গেটের সামনে থেকে ফুল বিছানো গালিচায় ফুলে ফুলে সিক্ত হন আকবর আলী। রাতে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে জুম্মাপাড়ায় তাকে সংবর্ধনা দেওয়া হবে। সেখানে প্রস্তত করা হয়েছে বিশাল মঞ্চ।

আকবর শুরুতে মাদ্রাসায় ভর্তি হলেও পরে বাড়ির পাশে বেগম রোকেয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করে নগরীর লায়ন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজে ভর্তি হন। ক্লাস সিক্সে উঠে রংপুরের অসীম মেমোরিয়াল ক্রিকেট একাডেমিতে ভর্তি হন। সেখানে অঞ্জন সরকারের হাত ধরে রংপুর জিলা স্কুলের মাঠে তার ক্রিকেটের হাতেখড়ি হয়।

এরপর ২০১২ সালে বিকেএসপিতে সুযোগ পান আকবর। বিকেএসপির বয়সভিত্তিক দলে খেলে সুযোগ পেয়ে যান জাতীয় অনূর্ধ্ব-১৭ দলে। নেতৃত্ব দেওয়ার অভিজ্ঞতাও হয় সেখান থেকে । ২০১৬ সালে তার এসএসসি পরীক্ষার সময় চলছিল প্রথম বিভাগ ক্রিকেট লিগ। খেলা ও লেখাপড়া দুটিই সামলেছেন দারুণ মনোযোগে। এসএসসিতে জিপিএ-৫ পান আকবর। এইচএসসিতে পান জিপিএ ৪.৪২। সব শেষে আকবর আলী দক্ষিণ আফ্রিকার আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে নেতৃত্ব দিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়ে দেশের জন্য বয়ে আনেন বিরল সম্মান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

Advertisement