Tuesday, August 3rd, 2021




দায়দেনার তথ্য জানাতে ছয় মাস সময় চায় ইভ্যালি

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আইনি নোটিসের জবাবে গ্রাহক ও মার্চেন্টদের প্রতি চলমান দায়ভার স্পষ্ট করার ব্যাপারে ব্যাখ্যা দিতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে ছয় মাস সময় চেয়েছে ই-কমার্স প্লাটফর্ম ইভ্যালি। গতকাল ইভ্যালির পক্ষ থেকে একটি চিঠি দিয়ে এ সময় চাওয়া হয়েছে। গত ১৯ জুলাই ইভ্যালিকে দেয়া নোটিসের জবাব দিতে শেষ সময় ছিল গতকাল। নোটিসে ইভ্যালির ব্যবসা পদ্ধতি ও গ্রাহক ভোগান্তির কারণে প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে কেন আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে না সে বিষয়টিও জানতে চাওয়া হয়।

গ্রাহক ও মার্চেন্টদের সুরক্ষা ও ডিজিটাল কমার্স খাতের ওপর নেতিবাচক প্রভাব প্রতিরোধের লক্ষ্যে ইভ্যালির বিরুদ্ধে কেন আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে ইভ্যালিকে কারণ দর্শানোর নোটিসটি দিয়েছিল বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এতে কোম্পানিটির ব্যবসা পদ্ধতিও জানতে চাওয়া হয়েছিল। ইভ্যালির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিন ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ রাসেলের কাছে পাঠানো কারণ দর্শানোর নোটিসের সঙ্গে ছয়টি বিষয় আবশ্যিকভাবে জানানোর কথা বলা হয়েছিল।

১ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগের ব্যাপারে ইভ্যালি মন্ত্রণালয়কে অবহিত করেছে। যদিও তারা যমুনা গ্রুপের নাম উল্লেখ করেনি। ইভ্যালি জানিয়েছে, প্রাথমিকভাবে তারা ২০০ কোটি টাকা পাবে, যার মাধ্যমে দেনা মেটানো থেকে ব্যবসায় ফেরা অনেকখানি স্বাভাবিক হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

মন্ত্রণালয়ের কারণ দর্শানোর নোটিসের জবাবে ইভ্যালি জানায়, ‘তৃতীয় নিরপেক্ষ নিয়ন্ত্রক দ্বারা আমাদের সম্পূর্ণ আর্থিক বিবরণী এবং কোম্পানির ভ্যালুয়েশনসহ উপস্থাপন করার জন্য এবং ওই পত্রের দ্বিতীয় অধ্যায়ে বর্ণিত ২-এর ‘ক’ হতে ‘ঙ’ পর্যন্ত বিষয়ে আমাদের অবস্থান এবং সংশ্লিষ্ট তথ্যাদি উপস্থাপনের জন্য ন্যূনতম আরো ছয় মাস সময় প্রয়োজন। এ সময়ের মধ্যে ইভ্যালি আগের প্রতিশ্রুত পণ্যের ডেলিভারি ক্রমান্বয়ে সমাপ্ত করার সর্বাত্মক চেষ্টা করবে এবং ১৫ দিন অন্তর ডেলিভারির অগ্রগতি-সংক্রান্ত রিপোর্ট মন্ত্রণালয়কে প্রেরণ করবে।’

আইনি নোটিসে ইভ্যালির আর্থিক ত্রুটির বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক প্রকাশিত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে ব্যাখ্যা চাওয়া হয় প্রতিষ্ঠানটির কাছে। ১ আগস্টের মধ্যে নোটিসে উল্লেখিত বিষয়ের ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়। গ্রাহক ও মার্চেন্টদের সুরক্ষা এবং ই-কমার্স খাতে নেতিবাচক প্রভাব রোধে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ডব্লিউটিও সেল সেদিন ওই নোটিস পাঠায়।

গ্রাহকের কাছ থেকে নেয়া অগ্রিম এবং মার্চেন্টের পাওনা ৩৩৮ কোটি ৬২ লাখ টাকা আত্মসাৎ ও পাচারের অভিযোগে এরই মধ্যে ইভ্যালির বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শুরু করেছে দুদক। অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে এরই মধ্যে রাসেল ও তার স্ত্রীর দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ১৪ মার্চ ইভ্যালি ডটকমের মোট সম্পদ ছিল ৯১ কোটি ৬৯ লাখ ৪২ হাজার ৮৪৬ টাকা (চলতি সম্পদ ৬৫ কোটি ১৭ লাখ ৮৩ হাজার ৭৩৬ টাকা) এবং মোট দায় ছিল ৪০৭ কোটি ১৮ লাখ ৪৮ হাজার ৯৯৪ টাকা। এর মধ্যে গ্রাহকের কাছে ইভ্যালির দায় ২১৩ কোটি ৯৪ লাখ ৬ হাজার ৫৬০ টাকা ও মার্চেন্টের কাছে দায় ১৮৯ কোটি ৮৫ লাখ ৯৫ হাজার ৩৫৪ টাকা। সেই প্রতিবেদনটি বাণিজ্য মন্ত্রণালয় দুদকে পাঠিয়ে ইভ্যালির বিরুদ্ধে অনুসন্ধান করে কোনো অনিয়ম পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে দুদককে অনুরোধ করা হয়।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ