Saturday, June 12th, 2021




‘টিকটক’র ফাঁদে বিপথে উঠতি বয়সিরা

‘টিকটক ও লাইকি’র ফাঁদে পড়ে নতুন প্রজন্মের অনেকেই বিপথে পা বাড়াচ্ছে। এ দুই অ্যাপকে কেন্দ্র করে পাড়া-মহল্লায় এখন নতুন নতুন কিশোর গ্যাং গড়ে উঠছে। তারা সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্রে যোগ দিয়ে নানা অপকর্মে জড়াচ্ছে।

টিকটক মডেল বানানোর ফাঁদে ফেলে সংঘবদ্ধভাবে গণধর্ষণের ঘটনাও ঘটছে। অপরাধে জড়িয়ে মাদক সেবন, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে খুনোখুনির ঘটনাও ঘটছে। স্বল্প সময়ে কথিত টিকটক স্টার হওয়ার নেশায় কিশোর-কিশোরী, তরুণ-তরুণীরা এ পথে পা বাড়াচ্ছে।

টিকটক ও লাইকি হচ্ছে ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ। এটি কম বয়সি বিশেষ করে কিশোর-কিশোরী, তরুণ-তরুণীদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। সেই ভিডিওতে তারা নাচ-গানসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের দৃশ্য এমনভাবে উপস্থাপন করে, যাতে উঠতি বয়সিরা সহজেই আকৃষ্ট হয়। বিনোদন জগতের কোনো কোনো সেলিব্রেটিও এ দুটি অ্যাপে বিভিন্ন ভিডিও শেয়ার করেন। টিকটক অ্যাপ ব্যবহারকারীদের অধিকাংশের বয়স ১৬ থেকে ২৫ বছরের মধ্যে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কথিত স্টার হওয়ার নেশায় উঠতি বয়সিরা টিকটক-লাইকির মতো অ্যাপে উচ্ছৃঙ্খল ভিডিও আপলোড করছে। অনেকে এভাবে কথিত স্টারও বনে যাচ্ছে। তাদের এক শ্রেণির ফলোয়ার তৈরি হচ্ছে। এ ফলোয়ারদের নিয়েই বিভিন্ন এলাকাভিত্তিক গ্যাং গড়ে উঠছে।

টিকটক-লাইকিতে আসক্তদের খুব সহজেই আলাদা করা যায়। তারা উদ্ভট পোশাক পরছে, চুলে বিভিন্ন ধরনের কালার করছে। রাস্তা, ফাঁকা মাঠসহ বিভিন্ন স্থানে তারা স্মার্টফোন নিয়ে উদ্ভট ধরনের নাচ-গানের তালে তালে ভিডিও করছে। ঢাকার বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় টিকটক কিশোর গ্যাংয়ের আধিপত্য বাড়ছে।

বিশেষ করে ঢাকার হাতিরঝিলের বিভিন্ন স্থানে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত টিকটকারদের আড্ডা দিতে দেখা যায়। কিশোর গ্যাং এবং টিকটকারদের নিয়ন্ত্রণ করতে চলতি বছরের শুরুতে হাতিরঝিল এলাকায় পুলিশের পক্ষ থেকে ব্যাপক অভিযানও পরিচালনা করা হয়। তখন শতাধিক কিশোর-কিশোরীকে আটকও করা হয়। পরে অধিকাংশদেরই অভিভাবকের জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হয়।

আগস্টে উত্তরায় কিশোরদের হাতে এক প্রকৌশলী মারধরের শিকার হন। পরে জানা গেল টিকটককে কেন্দ্র করে ফেনীর কিশোর ইয়াসিন ওরফে অপু ঢাকায় এসে তার ফলোয়ারদের নিয়ে একটি কিশোর গ্যাং গড়ে তুলেছে। ওই সময় বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা শুরু হলেও টিকটক বন্ধ করা যায়নি। বরং যত দিন যাচ্ছে, এর ব্যাপকতা বাড়ছে।

সর্বশেষ ভারতে পাচার হওয়া এক নারীকে নির্মম নির্যাতনের ভিডিও ভাইরাল হওয়ার ঘটনা তদন্তে জানা গেল টিকটক মডেল বানানোর ফাঁদে ফেলে দেড় শতাধিক কিশোরী ও তরুণীকে ভারতে পাচার করা হয়েছে। এমন ভয়ংকর তথ্য পাওয়ার পর নড়েচড়ে বসেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এরই মধ্যে অভিযান চালিয়ে অন্তত ৭ জনকে গ্রেফতার করা হয়।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন যুগান্তরকে বলেন, টিকটককে কেন্দ্র করে কেউ অপরাধে জড়ালে এবং এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এলাকাভিত্তিক গ্যাং গড়ে উঠছে কিনা এ বিষয়ে সব সময় আমাদের নজরদারি আছে। র‌্যাব সদর দপ্তর থেকে সব ব্যাটালিয়নকেই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে এ সংক্রান্ত হালনাগাদ তালিকা তৈরি করার জন্য। অভিযোগ পেলে এবং অপরাধের সঙ্গে কারও সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের ডিসি মো. শহিদুল্লাহ বলেন, টিকটক গ্যাংয়ের সঙ্গে যুক্ত হয়ে যারা অপরাধের সঙ্গে জড়াচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। টিকটকের কার্যক্রম শুরুর পর থেকে পাচারের সঙ্গে জড়িতরা টিকটক ব্যবহার করছে। উঠতি বয়সি কিশোরী ও তরুণীদের মডেল বানানোর ফাঁদে ফেলা হচ্ছে। এজন্য টিকটককে নেতিবাচক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখা হচ্ছে।

ফাঁদে ফেলে ধর্ষণ : গত বছরের ডিসেম্বরে গাজীপুরের টঙ্গীর সপ্তম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে টিকটক স্টার বানানোর ফাঁদে টানা ৩ দিন আটকে রেখে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণ করে গ্যাংয়ের সদস্যরা।

টিকটক করতে গিয়েই পুরান ঢাকার একটি টিকটক গ্যাংয়ের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। এ ঘটনায় টঙ্গী পূর্ব থানায় নিখোঁজের ডায়েরি করে কিশোরীর পরিবার। পরে পুলিশ রাজধানীর হাতিরঝিল ও ওয়ারী থানা এলাকা থেকে এ গ্যাংয়ের সদস্য শিশির, শাওন ও জুনায়েদ নামে তিনজনকে গ্রেফতার করার পাশাপাশি কিশোরীকেও উদ্ধার করে।

পুলিশ জানায়, ওই কিশোরীকে গেণ্ডারিয়ার একটি বাসায় নিয়ে শিশির, শাওন, জুনায়েদসহ চারজন মিলে ধর্ষণ করে।

শুধু এ তরুণী নয়, টিকটক মডেল হওয়ার নেশায় অনেকেই গ্যাংয়ের ফাঁদে পা দিচ্ছে। গত বছর রাজধানীর ভাটারা থেকে দেওয়ান রসুল হৃদয় নামে এক কথিত মডেল চার তরুণীকে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়। ওই তরুণীরা টিকটক মডেল হতে হৃদয়ের ফাঁদে পা দেয়।

এদিকে ২৪ মে পল্লবী থানা পুলিশ কথিত টিকটক স্টার সজিবকে গ্রেফতার করে। টিকটক সজিব ২৩ আগস্ট এক তরুণীকে পার্টিতে নিমন্ত্রণের কথা বলে বাসায় নিয়ে ধর্ষণ করে। ওই ঘটনার ভিডিও ধারণ করে দিনের পর দিন ওই তরুণীকে ধর্ষণ করছিল সে। এ ঘটনায় থানায় মামলা করার পর পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

এ ঘটনায় করা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পল্লবী থানার এসআই সজীব খান বলেন, শুধু টিকটক সজিব নয়, তার সহযোগীদেরও আইনের আওতায় আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

টিকটককে কেন্দ্র করে খুন : ২০১৯ সালের মার্চে টিকটকে ভিডিও আপলোডকে কেন্দ্র করে বিরোধের জেরে বন্ধুদের হাতে খুন হয় অষ্টম শ্রেণির স্কুলছাত্র আরাফাত হোসেন শুভ। সে সদর উপজেলার পাচগাছিয়া ইউনিয়নের কাশিমপুর গ্রামের ইমাম হোসেনের ছেলে। পাঁচ বন্ধু মিলে তাকে গলা কেটে হত্যা করে।

এদিকে বাগেরহাট শহরে চলতি বছরের ৮ এপ্রিল টিকটক ভিডিও আপলোড নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়ার জেরে খুন হন সোমা আক্তার নামের এক কলেজছাত্রী। সোমা টিকটক ও লাইকিসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি ও ভিডিও আপলোড করতেন। তার স্বামী আব্দুল্লাহ আল নাইম শান্ত বিষয়টি পছন্দ করতেন না। এ নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে শ্বাসরোধ করে সোমাকে হত্যা করেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ