Wednesday, April 14th, 2021




ব্যায়ামের অভাবে সংক্রমণের তীব্রতা বাড়ে: গবেষণা

করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের কায়িক পরিশ্রম বা ব্যায়ামের অভাবে সংক্রমণের তীব্রতা বাড়ে। শারীরিক পরিশ্রম করেন না বা বসে থেকে কাজ করেন এমন রোগীদের মৃত্যুঝুঁকি বেশি। সম্প্রতি নতুন এক গবেষণা এমন দাবি করেছে। ব্রিটিশ জার্নাল অব স্পোর্টস মেডিসিনে মঙ্গলবার গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়েছে।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এমন ৪৮ হাজার ৪৪০ জন রোগীর উপর চালানো হয় এ গবেষণা। এতে দেখা গেছে, মহামারির আগে কমপক্ষে দুই বছর ধরে যারা কায়িক শ্রম, ব্যায়াম বা হাঁটাচলা করেন না অর্থাৎ শারীরিকভাবে নিষ্ক্রিয় বা অলস তাদের ক্ষেত্রে ভাইরাসটির তীব্রতা বেশি। এমন বেশিরভাগ রোগীদের প্রয়োজন হয়, হাসপাতাল, আইসিইউ।

গবেষণাপত্রে বলা হয়, ধূমপান, স্থূলতা বা উচ্চরক্তচাপ এগুলোর চেয়েও বেশি ঝুঁকিপূর্ণ হলো শারীরিক নিষ্ক্রিয়তা। শারীরিকভাবে নিষ্ক্রিয় ব্যক্তিদের চেয়েও করোনাভাইরাসে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছেন শুধুমাত্র বৃদ্ধ ও যাদের অঙ্গ-প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল এমন রোগীরা।

গবেষণায় গত বছরের জানুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন এমন ৪৮ হাজার ৪৪০ রোগীর তথ্য সংগ্রহ করা হয়। এদের গড় বয়স ছিল ৪৭ বছর। প্রতি পাঁচজনের ৩ জন নারী ও ২ জন ছিলেন পুরুষ। এদের ওজনাধিক্য ও স্থূলতা নিরূপণের সর্বাধিক ব্যবহৃত পদ্ধতি- বিএমআই (বডি মাস ইনডেক্স) ছিল গড়ে ৩১।

সমীক্ষায় অংশ নেওয়া প্রায় অর্ধেকই ডায়াবেটিস, ফুসফুসের রোগ, হৃদরোগ, কিডনির রোগ বা ক্যানসারের মতো মারাত্মক কোনো রোগে ভোগেন না। ২০ শতাংশ এর যে কোনো একটি রোগে ভোগে। আর বাকি ৩০ শতাংশ দুটি বা এর বেশি রোগে ভোগেন।

এদের প্রত্যেকের ২০১৮ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত দৈনন্দিন জীবনাচারের ধরন ও অন্যান্য তথ্য সংগ্রহ করা হয়। এদের মধ্যে প্রায় ১৫ শতাংশ গত দুই বছরে শারীরিকভাবে নিষ্ক্রিয় ছিলেন। এরা প্রতি সপ্তায় গড়ে ০ থেকে ১০ মিনিট শারীরিক পরিশ্রমের কোনো কাজ করেন। প্রায় ৮০ শতাংশ, প্রতি সপ্তায় ১১ থেকে ১৪৯ মিনিট শারীরিক পরিশ্রমের কাজ করতেন। আর ৭ শতাংশ প্রতিদিন কায়িক পরিশ্রম করতেন– যা প্রতি সপ্তায় ১৫০ মিনিটের বেশি।

সকল তথ্য সংগ্রহ করে বয়স, স্বাস্থ্যসুবিধা ইত্যাদি বিবেচনায় নিয়ে গবেষণায় দেখা যায়- বসে থাকা করোনা রোগীদের মৃত্যুর হার অন্যদের চেয়ে দ্বিগুণেরও বেশি। অন্যদের চেয়ে এদের আইসিইউ-এর প্রয়োজন হয় ৭৩ শতাংশ বেশি। আর মৃত্যু ঝুঁকিও প্রায় আড়াইগুণ বেশি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ