Wednesday, April 7th, 2021




ই-কমার্স ব্যবসার সঙ্গে বড় হচ্ছে ই-কমার্স ভিত্তিক লজিস্টিক্স ব্যবসা

দেশের বাজারে ই-কমার্স ব্যবসার প্রসারের সঙ্গে সঙ্গে বড় হচ্ছে ই-কমার্স ভিত্তিক লজিস্টিক্স ব্যবসা। ই-কমার্সে অর্ডার করা পণ্য গ্রাহকের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করতে ব্যাপক চাহিদা বাড়ছে এই খাতের।

ডাটা রিসার্চ বিডি নামক একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের হিসেব মতে, বর্তমানে বার্ষিক প্রায় ২ বিলিয়ন ডলারের বাজার রয়েছে লজিস্টিক্স খাতের।

দেশে পণ্য পরিবহন তথা লজিস্টিক্স খাতে সুন্দরবন, এস এ পরিবহনসহ বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান কাজ করে আসছে। তবে, ই-কমার্সের প্রসারের সঙ্গে সঙ্গে ই-কমার্স বান্ধব লজিস্টিক্স সেবার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। আর সেই প্রয়োজনীয়তা থেকেই দেশের বাজারে ধীরে ধীরে জায়গা করে করে নেওয়ার পাশাপাশি বিদেশি বিনিয়োগও পাচ্ছে প্রতিষ্ঠানগুলো।

ভারতের পেপারফ্লাই ভারতের বাইরে প্রথম কার্যক্রম শুরু করে বাংলাদেশে। দেশীয় লজিস্টিক্স প্রতিষ্ঠান ই-কুরিয়ার ২০১৯ সালে হংকং ভিত্তিক লগ্নিকারী একটি প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগ পেয়েছে। নিজেদের লজিস্টিক খাত আরও সম্প্রসারণ করার জন্য আলিবাবার কাছ থেকে ৫০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ পেয়েছে আরেক ইকমার্স মার্কেটপ্লেস দারাজ।

ই-কমার্স খাত সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তারা বলেন, দেশে যখন ই-কমার্সের ব্যবসা বড় হতে শুরু করলো তখন গতানুগতিক লজিস্টিক্স প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে আমরা কাঙ্ক্ষিত সেবা পাচ্ছিলাম না। চালডালের কথা বললেই, ২০১৩ সালে যখন আমাদের যাত্রা শুরু হয় তখন নিজেদেরকেই ডেলিভারির ব্যবস্থা নিতে হয়েছে। আমরা নিজেরা নিজেদের ডেলিভারি দিতে দিতেই লজিস্টিক্স উইং গড়ে উঠেছে- গো গো বাংলা। অন্য ইকমার্সগুলোও এমন করেছে। আবার বাজার বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নতুন নতুন প্রতিষ্ঠান এই খাতে এসেছে যেমন ই-কুরিয়ার, রেডেক্স, পেপারফ্লাই, ঘুড়ি ইত্যাদি। আবার রাইড শেয়ারিং প্ল্যাটফর্মগুলোও এই খাতে এসেছে যেমন পাঠাও, উবার নিয়ে এসেছে ‘উবার কানেক্ট’ ইত্যাদি।

বর্তমানে মানুষের চলাচলে আবারও কঠোরতা আরোপ করায় ই-লজিস্টিক্স খাতের চাহিদা আরও বাড়বে। আর তার জন্য এই খাত প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানিয়েছেন খাত সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তারা। চলাচলে কঠোরতা, মার্কেট শপিংমল বন্ধ বা লকডাউনের মতো সময়ে ডেলিভারির চাহিদা আরও বৃদ্ধি পায়। বর্তমানে দেশে প্রতিদিন সবগুলো ই-লজিস্টিক্স পার্টনাররা মিলে কমপক্ষে এক লাখ ২০ হাজার থেকে দেড় লাখ পণ্য ডেলিভারি করছে। বর্তমান সময়ের মতো পরিস্থিতির জন্য আমরা আমাদের কর্মীদের প্রস্তুত করছি। নতুন নতুন কর্মী নিয়োগ দিচ্ছি, তাদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছি। তারা যেন সর্বোচ্চ স্বাস্থ্যবিধি মেনে পণ্য সরবরাহ করতে পারে তার জন্য কাজ করছি। চালডালে আমরা তাদেরকে বলি ‘গ্রাহক সেবা প্রতিনিধি’। করোনার এই সময়ে তারা নিজেরাও কিন্তু সম্মুখ যোদ্ধা। সবাই কিন্তু শুধু টাকার জন্য চাকরি করছে না এখানে। মানবিক দিক থেকেও চাকরি করছে। কোন গ্রাহক হয়তো বলছেন তিনি করোনা আক্রান্ত তবুও তার পণ্যটি তার দরজার গোড়ায় পৌঁছে দিচ্ছি আমরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ