Saturday, January 9th, 2021




মুসলিম শাসনামলে চিকিৎসাশাস্ত্রের ক্রমবিকাশ

ঐতিহাসিকদের বর্ণনা মতে, ইসলাম-পূর্ব আরব ভূখণ্ডে চিকিৎসাশাস্ত্রের প্রধান ভিত্তি ছিল প্রাচীন লোকদের অনুসৃত মতবাদ এবং উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া জ্যোতির্বিদ্যা ও জাদুবিদ্যার জ্ঞান। সে সময়ের চিকিৎসাপদ্ধতি ছিল স্বাস্থ্য সুরক্ষায় প্রায়োগিক অনুশীলন। যেমন—নিজেদের আবিষ্কৃত ঝাড়ফুঁক, বনজ বা গাছগাছালির সাহায্যে চিকিৎসা গ্রহণ। তবে নবীজির আগমনের পর তৎকালীন চিকিৎসাশাস্ত্রে এক যুগান্তকারী পরিবর্তন আসে।

তিনি শুধু সে সময়ের প্রচলিত চিকিৎসাশাস্ত্রের ওপর নির্ভর না করে কার্যকরী রোগ নিরাময় ও উপশমের অনেক থিওরি বা পদ্ধতি বলেছেন। সহিহ মুসলিমের এক বর্ণনায় এসেছে, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘প্রতিটি ব্যাধির প্রতিকার রয়েছে। অতএব রোগে যথাযথ ওষুধ প্রয়োগ করা হলে আল্লাহর ইচ্ছায় আরোগ্য লাভ হয়।’ (মুসলিম, হাদিস : ৫৬৩৪)

আর বিভিন্ন সময়ে তিনি এর বেশ কিছু প্রায়োগিক ব্যবহারও দেখিয়েছেন। রোগ নিরাময়ের ব্যবস্থা হিসেবে মহানবী (সা.)-এর সাধারণত পাঁচটি পদ্ধতির ব্যবহার উল্লেখ করা হয়—১. হাজামাত বা রক্তমোক্ষণ পদ্ধতি। ২. লোলুদ বা মুখ দিয়ে ওষুধ ব্যবহার। ৩. সাউত বা নাক দিয়ে ওষুধ ব্যবহার। ৪. মাসিঈ বা পেটের বিশোধনের জন্য ওষুধ ব্যবহার। ৫. কাওয়াই বা পেটের বিশোধনের ওষুধ ব্যবহার। আর ওষুধ হিসেবে তিনি ব্যবহার করেছেন মধু, কালিজিরা, সামুদ্রিক কুন্তা বা বুড়, খেজুর, মান্না বা ব্যাঙের ছাতার মতো এক প্রকার উদ্ভিদ, উটের দুধ প্রভৃতি। ওহি মারফত প্রাপ্ত জ্ঞানের পাশাপাশি তিনি আরবদের উপকারী সহজ আদিম অভিজ্ঞতাগুলোও এ ক্ষেত্রে কাজে লাগিয়েছেন।

তা ছাড়া অসুস্থতার সময় চিকিৎসা গ্রহণে অবহেলা না করে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার প্রতিও বিশেষ গুরুত্বারোপ করেছেন। এমনকি রোগ প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় ওষুধ-উপকরণ সম্পর্কে জানা এবং পার্থিব জীবনে এ বিষয়ে জ্ঞানার্জন ও গবেষণার প্রতি লোকদের ব্যাপকভাবে উৎসাহ প্রদান করেছেন। যার প্রমাণ নির্ভরযোগ্য হাদিস গ্রন্থগুলোতে রোগের চিকিৎসাপদ্ধতি, রোগ নিরাময় ও রোগ প্রতিরোধ কার্যাবলিসংবলিত বিভিন্ন অধ্যায়। এ ছাড়া নির্ভরযোগ্য হাদিস গ্রন্থগুলোর পাশাপাশি নবীজির চিকিৎসাবিষয়ক স্বতন্ত্র রচনাও রয়েছে। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হাফেজ জিয়াউদ্দিন মাকদিসি, ইবনুল কাইয়ুম ও আবু নুআঈম ইস্পাহানি (রহ.) রচিত-‘আত-তিব্বুন নববী’।

উমাইয়া শাসনামলে চিকিৎসাবিজ্ঞানের অগ্রযাত্রা

৪১ হিজরিতে হজরত আলী (রা.)-এর শাহাদাতের পর দীর্ঘ ৯০ বছর উমাইয়া শাসকরা ইসলামী খেলাফতের দায়িত্ব নিয়ন্ত্রণ করেন। সে সময় চীন ও স্পেনের সব রাজ্য তাদের ক্ষমতার আওতাধীন ছিল। ফলে দীর্ঘ এই সময়ে বিভিন্ন জাতির সাংস্কৃতিক সংমিশ্রণ ঘটে। ধীরে ধীরে বিজ্ঞান ও চিকিৎসাশাস্ত্রের বিকাশ ঘটতে থাকে। একপর্যায়ে ওই অঞ্চলগুলোতে চিকিৎসাবিজ্ঞানের জোয়ার সৃষ্টি হয়। আর সে সময়ে সিরিয়া ছিল উমাইয়া খিলাফতের রাজধানী এবং আরব ও রোমকদের মাঝে প্রাচীন সভ্যতার একীভূত হওয়ার কেন্দ্রবিন্দু। এদিকে সিরিয়ার আলেমরা বিশেষভাবে খ্রিস্টান পাদ্রিরা গ্রিক দার্শনিকদের দর্শন ও চিকিৎসাশাস্ত্রের রচনাবলির প্রতি যথেষ্ট ধারণা রাখতেন। তাই উমাইয়া খলিফা খালিদ ইবনে ইয়াজিদ এবং খলিফা মারওয়ান বিন হাকিমের উদ্যোগে রসায়ন ও চিকিৎসাবিজ্ঞানসংক্রান্ত গ্রিক গ্রন্থগুলো আরবিতে অনূদিত হয়। আর খলিফা ওমর ইবনে আবদুল আজিজ তাঁর ডাক্তার বন্ধু আবদুল মালিক বিন আবহারকে মিসর থেকে এনে চিকিৎসাবিষয়ক গ্রন্থাবলি এবং চিকিৎসাসামগ্রীসহ ইন্তাকিয়া শহরে প্রেরণ করেন। গ্রিক থেকে ইসলামী ভূখণ্ডে এই প্রেরণকে জ্ঞানের প্রথম স্থানান্তর হিসেবে বিবেচনা করা হয়। আর সে সময়ের বিখ্যাত চিকিৎসকদের অন্যতম ছিলেন ইবনে আসাল, যিনি চিকিৎসাশাস্ত্রে একজন প্রাজ্ঞ ব্যক্তিত্ব। তা ছাড়া তিনি খলিফা মুয়াবিয়া বিন আবু সুফিয়ানের একান্ত চিকিৎসক হিসেবে মনোনীত ছিলেন। ঐতিহাসিক ইবনে আবি আসিবা বলেন, ‘তিনি দামেস্কের খ্রিস্টান সমপ্রদায়ের অভিজ্ঞ ডাক্তারদের একজন। মুয়াবিয়া (রা.) যখন দামেস্ক জয় করেন তখন ইবনে আসালকে নিজের ব্যক্তিগত চিকিৎসক হিসেবে নিয়োগ দেন। তিনি তাঁকে যথেষ্ট সম্মান করতেন এবং তাঁর অনুপস্থিতির শূন্যতা অনুভব করতেন। তিনি একক ও সম্মিলিত ওষুধের বিশেষজ্ঞ ছিলেন। এমনকি কোনো বস্তুর মধ্যে যদি প্রাণনাশক ক্রিয়া থাকত সেটাও তিনি নিরীক্ষণ করতে পারতেন।’

তা ছাড়া উমাইয়া শাসকরা অসুস্থ রোগীদের চিকিৎসা প্রদানের জন্য স্থায়ী হাসপাতালও নির্মাণ করেন, যা ইসলামী ইতিহাসে সর্বপ্রথম। মিকরিজি বলেন, ‘খলিফা আবদুল মালিক বিন মারওয়ান ৮৮ হিজরি মোতাবেক ৭০৭ খ্রিস্টাব্দে সর্বপ্রথম বিপুল অর্থ ব্যয় করে অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে একটি বিশাল হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেন এবং হাসপাতালের চিকিৎসক হিসেবে সে সময়ের বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের বিশেষ সুযোগ-সুবিধাসহ নিয়োগ প্রদান করেন। এমনকি কুষ্ঠ রোগী এবং অন্ধদের জন্য নির্দিষ্ট পরিমাণে ভাতাও নির্ধারণ করেন।’ উমাইয়া শাসনামলের চিকিৎসাবিজ্ঞানের অগ্রগতির এ ধারা আব্বাসীয় শাসনামল পর্যন্ত অব্যাহত থাকে।

আব্বাসীয় শাসনামলে চিকিৎসাবিজ্ঞানের সূচনা

মুসলিম চিকিৎসাবিজ্ঞানের সূচনা বলতে যা বোঝায়, তা হয়েছিল আব্বাসীয় শাসনামলে। দ্বিতীয় শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে আব্বাসী খলিফারা নিজেদের রাজত্ব প্রতিষ্ঠার পর আরব ও অন্যান্য দেশের মধ্যে সমপ্রীতি ও সংযুক্তির সেতু তৈরি হয়। ফলে সামাজিক, সাংস্কৃতিক, জ্ঞান-বিজ্ঞান, চিকিৎসা বিজ্ঞান ও দার্শনিক গ্রন্থগুলোর আরবি অনুবাদ হয় এবং বাগদাদে রাষ্ট্রীয় উদ্যোগে বড় বড় হাসপাতাল গড়ে তোলা হয়। আরবে চিকিৎসাবিজ্ঞানের প্রকৃত উন্নতি সাধিত হয় আব্বাসীয় আমলে। রাজধানী বাগদাদসহ বড় বড় শহরে রাষ্ট্রীয় উদ্যোগে হাসপাতাল গড়ে তোলা হয়। সর্বপ্রথম আলাদা ইউনিটে পুরুষ ও মহিলাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়। যথাযথ চিকিৎসক কর্তৃক যাতে যথার্থ ওষুধ প্রয়োগ নিশ্চিত হয়, সে জন্যও চিকিৎসাবিষয়ক পরীক্ষকও নিযুক্ত করা হয়।

আর এই হাসপাতালগুলো গড়ে তোলার পেছনে আব্বাসীয় খলিফা আবু জাফর আল মনসুর, হারুনুর রশিদ ও তাঁর পরবর্তী খলিফা আল মামুনের অবদান সবচেয়ে বেশি। কারণ তৎকালীন সময়ে বর্তমান ইরানের খোরাসান প্রদেশের জন্ডিশাপুর শহর ছিল সে সময়ের চিকিৎসা কেন্দ্রের প্রধান অঞ্চল। বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা সেখানেই চিকিৎসা দিতেন। পরবর্তী সময়ে তাঁদের উদ্যোগেই বাগদাদের হাসপাতালগুলোতে তাঁদের যথাযথ মূল্যায়নে নিয়োগ দেন।

সুতরাং এ বিষয়টি স্পষ্ট যে ইসলাম-পূর্ব আরব ভূখণ্ডে চিকিৎসাশাস্ত্রের প্রধান ভিত্তি ছিল প্রাচীন লোকদের গৃহীত মতবাদ এবং উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া জ্যোতির্বিদ্যা ও জাদুবিদ্যার জ্ঞান। আর বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি গ্রহণ এবং আধুনিক ও অভিজ্ঞতাসম্পন্ন চিকিৎসা শেখার আগ্রহ ধীরে ধীরে উমাইয়া ও আব্বাসীয় শাসনামলের সূচনালগ্নে পরিব্যক্তি ঘটে।

লেখক : বিভাগীয় প্রধান, উলুমুল হাদিস বিভাগ, মারকাযুল বুহুস আল-ইসলামিয়া

আফতাবনগর, বাড্ডা, ঢাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ