Thursday, September 10th, 2020




করণ জোহর আমাকেও অপমান করেছেন: আমির খানের ভাই ফয়সাল

আমির খান ও ফয়সাল খান, সুদর্শন দুই ভাই ক্যারিয়ারের প্রথম দিকে একসঙ্গে সিনেমায় যাত্রা শুরু করেন। কিন্তু আমির যখন একের পর এক সিনেমা করে সাফল্যের চূড়ায় দাঁড়িয়ে, ফয়সাল তখন তলিয়ে গেছেন বিস্মৃতির অতলে।

বড় ভাই যখন একের পর এক সাফল্যের রেকর্ড গড়েছেন, ছোট ভাই তখন কড়া নেড়েছেন পরিচালকদের দরজায়। জুটেছে শুধুই প্রত্যাখ্যান। সুশান্তের মৃত্যুর পর থেকে যখন আবার বলিউডের স্বজনপ্রীতি, দলবাজি নিয়ে প্রশ্ন উঠতে থাকে, তখনই মুখ খুললেন ফয়সাল। আরও অনেকের মতোই তিনিও কাঠগড়ায় তোলেন করণ জোহরকে।

আক্ষেপের সুরে ফয়সাল অভিযোগ করেন, ‘আমাদের সিনেমা না চললে খারাপ ব্যবহার, অপমান সহ্য করতে হয় অনেক। নিচু চোখে দেখা হয় আমাদের। আমাকেও এমন আচরণ সহ্য করতে হয়েছে। আমার ভাইয়ের ৫০তম জন্মদিনের পার্টিতে করণ জোহর আমার সঙ্গে অদ্ভুত আচরণ করছিলেন। আমি বুঝতে পারছিলাম, আমাকে ছোট করার চেষ্টা করছিলেন তিনি। আমি যখন একজনের সঙ্গে কথা বলতে যাই, তিনি আমাকে সরাসরি অপমান করেন। এ রকম অনেক ঘটনাই ঘটেছে আমার সঙ্গে। ’

করণ জোহরকে নিয়ে এই অভিযোগ নতুন নয়। বলিউডের অনেকেই তার বিরুদ্ধে স্বজনপোষণের অভিযোগ তুলেছেন। আবার কেউ কেউ নাম না করেই অভিমান ঝরিয়েছেন ধর্ম প্রোডাকশনের কর্ণধারের উপর। কঙ্গনা রনৌত তারই শো’তে অতিথি হয়ে তাকেই নেপোটিজম তথা স্বজনপোষণের ধ্বজাধারী আখ্যা দিয়েছিলেন। তারপরও বারবারই তিনি আঘাত শানিয়েছেন করণের উপর। শুধু তাই নয়, সুশান্তের মৃত্যুর জন্যও তিনি দায়ী করেছেন করণ এবং তার ‘মাফিয়া গ্যাং’কে। তারপর থেকেই আমজনতার মধ্যেও তার জনপ্রিয়তা কমেছে খানিকটা। ইনস্টাগ্রামে হঠাৎই ফলোয়ার সংখ্যা কমে যায় পরিচালকের। চারদিক থেকে উড়ে আসে ট্রোল, কটাক্ষ, ব্যক্তিগত আক্রমণ। এই পরিস্থিতিই কি ফয়সালকে সাহস দিল বলিউডের এই প্রভাবশালী পরিচালকের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে?

২০০৭ সালে ফয়সাল পুলিশের কাছে অভিযোগ জানান, আমির তার প্রতি দুর্ব্যবহার করেন। তাকে নাকি গৃহবন্দি করে রাখতেন আমির। তার কিছুদিনের মধ্যেই তিনি নিখোঁজ হয়ে যান। অবশেষে পুলিশ তাকে পুণে থেকে উদ্ধার করে মুম্বাই নিয়ে আসে। অভিনেতার মেডিক্যাল পরীক্ষা করে জানা যায়, তিনি সেই সময় হতাশায় ভুগছিলেন। যদিও এসব মানতে নারাজ ফয়সাল। নিজেকে সম্পূর্ণভাবে সুস্থ বলে দাবি করেন তিনি।

তবে সিনেমায় সাফল্য অধরাই থেকে যায় ফয়সালের কাছে। ২০০০ সালের সিনেমা ‘মেলা’র পরে গোটা দশেক সিনেমায় কাজ করলেও তার আর কোনও সিনেমা তেমন সফল হয়নি। ধীরে ধীরে মানুষের স্মৃতি থেকে একপ্রকার আড়ালেই চলে যায় তার নাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ