Saturday, August 1st, 2020




উদাসীনতা ও অবজ্ঞা পরিহার করে বন্যা মোকাবিলায় দ্রুত ব্যবস্থা নিন: ফখরুল

উদাসীনতা ও অবজ্ঞা পরিহার করে বন্যা মোকাবিলায় দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শনিবার সকালে ঈদুল আযহার নামাজ শেষে জিয়াউর রহমানের কবর জিয়ারতের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বিএনপি মহাসচিব সরকারের প্রতি এই আহবান জানান।

তিনি বলেন, ‘‘ আমরা সমগ্র দেশের বন্যার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য আমাদের নেতা-কর্মীদের নির্দেশ দিয়েছে, অনুরোধ করেছি। একই সঙ্গে সরকারকে আহবান জানাচ্ছি যে, উদাসীনতা ও অবজ্ঞা বাদ দিয়ে অবিলম্বে এই বন্যা দূর্গত মানুষদের সাহায্যার্তে তারা শুধু ত্রাণ নয়, দূর্গতদের পূর্নবাসনের ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।”

‘‘ এবারকার বন্যা বেশ দীর্ঘস্থায়ী হবে বলে অনেকে আশঙ্কা করছেন।সেক্ষেত্রে তাদেরকে(সরকার) লং টার্ম(দীর্ঘস্থায়ী) পরিকল্পনা গ্রহন করা উচিত। যেটা তারা কখনই করেন না এবং অন্যের মতামতকে তারা কোনো প্রাধান্য দেন না।”

বণ্যা মোকাবিলায় সরকারের প্রস্তুতি পর্যাপ্ত কিনা জানতে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘‘ সরকারের ত্রাণ কার্য্ক্রম কখনোই পর্যাপ্ত নয়। এখন পর্যন্ত তা আমরা দেখিনি।”

বিএনপি তার সীমিত সাধ্যের মধ্যে দূর্গতদের পাশে দাঁড়াতে দলের কেন্দ্রীয় ত্রাণ কমিটি কাজ শুরু করেছে বলে জানান তিনি।

‘খালেদা বেশ অসুস্থ’

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘‘ আমাদের নেত্রী এখনো বেশ অসুস্থ আছেন। তার সমস্যাগুলো এখনো সমাধান করা সম্ভব হয়নি। কারণ প্রকৃতপক্ষে তিনি তো চিকিতসার সুযোগই পাচ্ছেন না।আজকে দেশে যে অবস্থা হয়েছে হাসপাতালগুলোতে যাওয়া যায় না, ডাক্তার সাহেবরা আসতে পারছেন না এবং বিদেশে যেয়ে যে চিকিতসা করবেন তারও কোনো সুযোগ নেই।”

‘‘ সেই কারণে এখনো তিনি ঠিক উন্নত তো চিকিতসা সেই চিকিতসার সুযোগটা তিনি পাননি। আমরা সেই সুযোগের অপেক্ষায় আছি। আমরা আশা করবো যে, তিনি সেই সুযোগ …।”

সকাল ১১ টায় স্থায়ী কমিটির সদস্যদের নিয়ে শেরে বাংলা নগরে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবরে গিয়ে ফাতেহা পাঠ করে মোনাজাত করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘‘ যখন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া কারাগারের বাইরে ছিলেন তখন প্রত্যেক বছর আমরা তাকে নিয়েই শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কবর জিয়ারত করতে আসতাম। দুর্ভাগ্য আজকে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে সম্পূর্ণ একটা মিথ্যা মামলায় তাকে আটক করে রাখা হয়েছে এবং বিভিন্ন রকম শর্তারোপ করে তাকে রাখা হয়েছে।”

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষ থেকে দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছাও জানান বিএনপি মহাসচিব।

তিনি বলেন, ‘‘ ঈদুল আজহার যে মূল কথা ত্যাগের মহিমায় সবাইকে উজ্জীবিত হয়ে ত্যাগ স্বীকার করে একদিকে এই ভয়ংকর ভাইরাসের সঙ্গে মোকাবিলা করা অন্যদিকে বন্যায় যে অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে তাকে মোকাবিলা করা এবং গণতন্ত্র এর জন্য সংগ্রামকে অব্যাহত রাখবার আজকে আমরা আল্লাহতালার কাছে দোয়া চেয়েছি।”

‘‘ আমরা দোয়া চেয়েছি, আল্লাহতালা যে সবাইকে সুস্থ রাখেন, দেশনেত্রীকে সুস্থ রাখেন এবং দেশনেত্রী সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে মুক্ত হয়ে আমাদের মাঝে আসবেন, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও দেশে ফিরে আসবেন। গণতান্ত্রিক পরিবেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হবে এই প্রত্যাশা আজকের দিনে আমরা করছি।”

স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু সেখানে ছিলেন।

‘খালেদার সাথে স্থায়ী কমিটির সাক্ষাত’

সন্ধ্যায় সাড়ে ৭টায় গুলশানের ‘ফিরোজায়’ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাথে করবেন দলের মহাসচিবসহ স্থায়ী কমিটির সদস্যরা। ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করতে এই সাক্ষাত।

গত ২৫ মার্চ সরকারের আদে্শে সাজা ৬ মাসের স্থগিতে মুক্ত হওয়ার পর খালেদা জিয়া তার বাসা ফিরোজায় আছেন। গত রোজার ঈদেরও স্থায়ী কমিটির সদস্যরা খালেদা জিয়ার সাথে সাক্ষাত করেছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ