Saturday, May 16th, 2020




খোকসার করোনাজয়ী চিকিৎসক ঢামেকে প্লাজমা দিলেন

করোনা থেকে সেরে ওঠা খোকসার চিকিৎসক রাজধানীর মিটফোর্ড হাসপাতালের ডা. রওনক জামিল পিয়াসসহ দুইজন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্লাজমা দিয়েছেন। শনিবার (১৬ মে) হাসপাতালের ব্লাড ট্রান্সফিউশন বিভাগে তারা তাঁদের প্লাজমা দিয়েছেন।

প্লাজমা-সংক্রান্ত সরকারি কারিগরি উপকমিটির প্রধান অধ্যাপক এম এ খান আজ থেকে প্লাজমা দেওয়ার জন্য কোভিড থেকে সেরে ওঠা রোগীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন। ঢাকা মেডিকেলে প্লাজমাথেরাপির পরীক্ষামূলক প্রয়োগ শুরু হচ্ছে। প্রথম দফায় ৪৫ জন মুমূর্ষু রোগীকে প্লাজমা দেওয়া হবে পরীক্ষামূলকভাবে।

চিকিৎসকরা জানান, প্লাজমাথেরাপি প্রাচীন একটি চিকিৎসাপদ্ধতি। এখানে কোনো ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে সেরে ওঠা ব্যক্তির রক্তরস সংগ্রহ করে নতুন আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরে প্রবেশ করানো হয়। দেশে সরকারিভাবে প্লাজমা সংগ্রহে এই দুই চিকিৎসকই প্রথম দানকারী। আজ প্লাজমা দেওয়া দুই চিকিৎসকের মধ্যে একজন সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের চিকিৎসক দিলদার হোসেন। তিনি হাসপাতালের কিডনি রোগ বিভাগের মেডিকেল অফিসার।

মিটফোর্ড হাসপাতালের চিকিৎসক রওনক জামিল প্লাজমা দিয়েছেন। তিনি হাসপাতালের অ্যানেসথেসিওলজিস্ট। রওনক জামিল ৫ মে করোনা থেকে সেরে উঠেছেন। তিনি বাড়ি থেকেই চিকিৎসা নিয়েছেন বলে জানান। ডা. পিয়াস বলেন, প্লাজমা দেওয়া নিয়ে জনমনে নানা ভ্রান্ত ধারণা আছে। এখানে ভয়ের কোনো কারণ নেই। এখন যাঁরা সেরে উঠেছেন, তাঁদের প্লাজমা দান করাটা দরকার। এই প্লাজমা মরণাপন্ন রোগীদের দিলে তাঁরা সেরে উঠবেন। সাধারণ মানুষ এগিয়ে আসুক প্লাজমা দিতে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও ভাইরাসবিদ নজরুল ইসলাম বলেন, ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে সেরে ওঠা ব্যক্তির শরীরের এক প্রতিরোধী ক্ষমতা তৈরি হয়, যাকে বলে অ্যান্টিবডি। এই অ্যান্টিবডি আসলে হয়ে যায় নতুন রোগীর প্রতিষেধক। সেরে ওঠা ব্যক্তির প্লাজমা নিয়ে আক্রান্ত কোনো ব্যক্তির শরীরে ঢোকানো হয়।’

আজ অধ্যাপক এম এ খান বলেন, আজ যাঁদের প্লাজমা নেওয়া হলো, সেগুলোর অ্যান্টিবডি পরীক্ষা করা হবে। স্পেন থেকে আনা একটি মেশিনে এর পরীক্ষা চলবে। একবারে কয়েকজনের প্লাজমা নিয়ে আমরা কোভিড–১৯ আক্রান্ত রোগীদের দিতে চাই। গত বৃহস্পতিবার থেকে অধ্যাপক এম এ খান নিজের মুঠোফোন থেকে করোনা সেরে ওঠা রোগীদের প্লাজমা দান করার আহ্বান জানিয়ে খুদে বার্তা দেন। সেখানে তিনি বলেন, ‘আপনি কোভিড–১৯ থেকে সুস্থ হয়ে থাকলে প্লাজমা দানে এগিয়ে আসুন। আজই এসএমএস করুন…’

এম এ খান বলেন, একজনের শরীর থেকে ৬০০ মিলিলিটার প্লাজমা নেওয়া যাবে। এ থেকে ২০০ মিলিলিটার করে তিনজনকে দেওয়া সম্ভব। অনেক সময় এমন হয় যে, একজনকে দুবার দেওয়া লাগতে পারে। সে ক্ষেত্রে কম রোগীকে দেওয়া যাবে। কোভিড–১৯ এ মারাত্মকভাবে আক্রান্ত রোগীকেই প্লাজমাথেরাপি দেওয়া হবে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকেই মূলত রোগীদের নেওয়া হবে। আগ্রহ প্রকাশ করায় কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালের রোগীদেরও নেওয়া হতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ