Monday, May 11th, 2020




আ. লীগ নেত্রীর বাড়িতে ডেকে নিয়ে ভার্সিটি ছাত্রীকে ধর্ষণ

বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় খালার বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিলেন। সেখানে তার ওপর কুনজর পড়ে খালুর। স্বামীর কুকীর্তিতে মদদ দেন খোদ খালা। তিনি আবার আওয়ামী লীগ নেত্রী। এ ঘটনা ঘটেছে সিলেটের জৈন্তাপুরে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে স্বামীসহ আওয়ামী লীগের নেত্রীকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

জৈন্তাপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শ্যামল বনিক বলেন, আসামিরা এই অপরাধের কথা স্বীকার করেছে। আমরা তাদের ধর্ষণ মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে প্রেরণ করেছি। গ্রেপ্তার সুমি বেগম (৩০) জৈন্তাপুর উপজেলার নিজপাট ইউনিয়নের মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও তার স্বামী কয়েছ আহমদ (৩৫) জৈন্তাপুর উপজেলার নিজপাট ইউনিয়নের কমলাবাড়ী মোকামটিলা এলাকার রেনু মিয়ার ছেলে। সুমি বেগম অভিযোগকারী তরুণীর খালা।

পুলিশ সূত্র জানায়, বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় ওই তরুণী জৈন্তাপুরে নিজ বাড়িতে রয়েছেন। খালা সুমি বেগম মাঝে মাঝে তরুণীকে তার বাড়িতে ডেকে নিতেন। গত ২ মে ইফতারের দাওয়াত দিয়ে ওই তরুণীকে নিজের বাড়িতে নিয়ে যান তিনি। ইফতার শেষে রাত ৮টার দিকে সুমি বেগম ওই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে চায়ের সঙ্গে নেশা জাতীয় কিছু মিশিয়ে খেতে দেন। এই চা খেয়ে অচেতন হয়ে পড়েন তরুণী। এর পর সুমি বেগমের সহায়তায় কয়েছ আহমদ ভিকটিমকে ধর্ষণ করে এবং মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে। জ্ঞান ফিরে এলে চিৎকার করে ওঠেন ওই তরুণী। এ সময় কয়েছ আহমদ তার মুখ চেপে ধরে।

পুলিশ সূত্র জানায়, পরে ওই তরুণীর বাবা এসে তাকে উদ্ধার করে নিয়ে যান এবং আত্মীয়স্বজনের পরামর্শে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করেন।

পরে ৪ মে এই ছাত্রী জৈন্তাপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। র‌্যাব ৯-এর সহযোগিতায় শুক্রবার মধ্যরাতে সিলেট থেকে কয়েছ আহমদ ও সুমি বেগমকে গ্রেপ্তার করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ