Saturday, November 16th, 2019




সাপাহারে ১২কৃষকের ৬০বিঘা জমির ১০হাজার আমগাছ কেটে ফেলার ৭২ঘন্টা অতিবাহিত হলেও উদ্ধার হয়নি কোন ক্লু

সাপাহার (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর সাপাহার-পোরশায় ১২জন কৃষকের প্রায় ৮থেকে ১০হাজার আমগাছ কেটে ফেলার ৭২ঘন্টা অতিবাহিত হলেও এখনও কোন ক্লু-উদ্ধার কিংবা প্রশাসনিক কোন ব্যাবস্থা গ্রহণ না করায় বাগান মালিকগন বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। তাদের মুখে এখন কোন ভাষা নেই জিজ্ঞেস করতেই তারা শুধু হাউমাউ করে কেঁদে ফেলছে। শনিবার সরেজমিনে ঘটনা স্থলে গিলে বাগান মালিক মুক্তার হোসেন এর সাথে কথা হয়। তিনি আক্ষেপ করে বলেন যে, আমি আর কাঁদবনা, সৃষ্ট ঘটনায় আমি কেঁদেছি আমার মা’ কেঁদেছে আমার সন্তান কেঁদেছে আমরা সবাই কেঁদেছি এখনও আমাদের কান্না দু:খ বেদনার সাথী হয়ে কেউ এগিয়ে এলোনা।

ঘটনার ৭২ঘন্টা পার হলেও প্রশাসনিকভাবে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হলোনা। পরবর্তীতে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে একটি চারা গাছ রোপনের জন্যও কেউ সহযোগীতা করলনা। প্রশাসন সহ সকলেই আমাদেরকে জিজ্ঞেস করছে আপনাদের কোন শত্রু ছিল কিনা। আমারা সব সময় বলেছি এত বড় ক্ষতি সাধনের মত কোন শত্রু আমাদের নেই। আমাদের ধারণা আমাদের উন্নয়নে ঈশ্বান্বিত হয়ে কেউ এধরণের ঘটনা ঘটিয়েছে যাতে সাপাহার পোরশা এলাকায় বড় ধরনের কোন উন্নয়ন না ঘটে। এরা দেশের শত্রু দশের শত্রু, জতির শত্রু একটি গাছ কেটে ফেলা আর সন্তান হত্যা করা একই কথা বলে আমরা মনে করি। জেলার সাপাহার উপজেলাকে প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা অর্থনৈতিক অঞ্চল ঘোষনা করার কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই অর্থনৈতিক উন্নয়নে বাধার এ সংবাদ সাপাহারবাসীর জন্য সুখকর নয় বলে এলাকার অভিজ্ঞমহল মনে করছেন। প্রতিদিন সকাল ও বিকেলে ক্ষতিগ্রস্ত বাগানে গিয়ে বাগান মালিকদের আহাজারী করতে দেখা গেছে। এবিষয়ে সাপাহার উপজেলা নির্বাহী অফিসার কল্যান চৌধুরীর সাথে কথা হলে তিনি জানান যে, এধরনের ক্রিমিনালদের খুঁজে বের করে উচিত শস্তির ব্যাবস্থা করতে হবে। পুলিশ ঘটনার ক্লু- উদ্ধারে জোরালো তদন্ত করে চলেছে, অল্প সময়ের মধ্যেই রহস্য উদঘাটিত হবে বলে তিনি মনে করেন। এর পর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল হাই এর সাথে কথা বলা হলে তিনি বলেন যে যে যাই বলুক এবিষয়ে আমরা তৎপর। আসল অপরাধীকে খুজে বের করতে গোপনে ডিপলি তদন্ত চলছে। ইতোমধ্যেই সাপাহার ও পোরশা থানায় ক্ষতিগ্রস্থদের পক্ষ থেকে দু’টি অভিযোগ দাখিল করেছে। তবে বিষয়টি যেহেতু রাতের অন্ধকারে ঘটিয়েছে তাই বিষয়টি সুরাহা করতে একটু সময় লাগবে বর্তমানে সাপাহার ও পোরশা উভয় থানার পক্ষথেকে তদন্ত চলছে। কিছু দিনের মধ্যেই হয়তো আসল রহস্য উম্মোচিত হবে ইনশাআল্লাহ। উল্লেখ যে, গত ১৩নভেম্বর রাতে একদল দুর্বৃত্ত নির্মম ভাবে সাপাহার-পোরশা উপজেলায় অবস্থিত কৃষকের ১০হাজার আমগাছ নির্বিচারে কেটে ফেলে প্রায় কোটি টাকার ক্ষতি সাধন করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ