Monday, September 2nd, 2019




মিডিয়া ও রাজনীতিতে আফরিন লাবণীর পথচলা

মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ সুন্দরী প্রতিযোগিতায় ২০১৮ এর গ্র্যান্ড ফিনালের আসরে জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী মুকুট জয় করে নিলেও আলোচনায় বিজয়ীর চেয়েও এগিয়ে ছিলেন লাবণী। মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশে অংশ নেয়া আলোচিত হওয়া আফরিন লাবণী বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির উপ-সাংস্কৃতিক সম্পাদক । জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন লাবণী। তিনি জবি থেকে বিবিএ (স্নাতক) সম্পন্ন করে বর্তমানে এমবিএতে অধ্যয়নরত।রাজনৈতিক পাড়ায় থেকে মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ সুন্দরী প্রতিযোগিতার মঞ্চে আলোচিত মডেল অভিনেত্রী আফরিন লাবণী নিজের কাজের ব্যস্ততা এবং সমসাময়িক বিষয়ে কথা বলেছেন আল আমিন সঙ্গে

রাজনৈতিকপাড়া থেকে মিডিয়ায়,পথচলার শুরুটা কীভাবে ?

লাবনী: ছোটবেলা থেকেই মিডিয়াটা আমার অনেক ভালো লাগত। সব সময়ই মিডিয়া রিলেটেড কাজগুলো দেখতে ভালো লাগত যেমন সিনেমা ,নাটক, ফ্যাশন শো ইত্যাদি। আমি ছোটবেলা থেকেই একটু ডানপিঠে ছিলাম । সাইকেল চালানো, স্কাউট, বাইক রাইড,স্কেটিং মার্শাল আর্ট, খেলাধূলা (ব্যাডমিন্টন,ভবিবল) ইত্যাদি সাথে জড়িত ছিলাম । বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত থাকায় আমার বন্ধুবান্ধবরা আমাকে মিস ওয়াল্ডে অংশগ্রহন করার অনুপ্রেরণা দেয় এবং অংশগ্রহন করতে সাহায্য করে।

মিস ওয়ার্ল্ডে আসার আগে কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নিয়েছেন কী ?

লাবনী: মিস ওয়ার্ল্ড আসার আগে কোন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নেয়া হয়নি । যাষ্ট কনফিডেন্ট ছিলাম।

পড়াশোনা ও বেড়ে ওঠা কোথায় ?

লাবনী: আমার বাড়ি রাজবাড়ি জেলার পাংশা থানায়।আমি পাংশা পাইলট উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও পাংশা কলেজ থেকে এইচএসসি কমপ্লিট করেছি বিজ্ঞান বিভাগ থেকে।

রাজনৈতিক করেন কিন্তু অভিনয় আসার কারন কি ?

লাবনী: রাজনীতিটা হচ্ছে আমার প্রথম প্রেম,আবেগ ও ভালবাসার জায়গা। নিজের আবেগ থেকেই সংগঠনকে ভালবাসি।আর মিডিয়াটা আমার Passion হিসেবে কাজ করে।

রাজনৈতিক ও অভিনয় দুটিকে একসঙ্গে সামলাবেন কীভাবে ?

লাবনী: রাজনীতি ও মিডিয়াটা একসাথে সামলানো কোন কঠিন কাজ নয়।শুধু ইচ্ছাশক্তি থাকলেই হয়।একসাথে আমি আমার পড়াশুনা, অসুস্থ মায়ের সেবা করা , রাজনীতি এবং মিডিয়ার কাজ একসাথে চালিয়েছি।

মায়ের প্রসঙ্গ যেহেতু আসলো আপনার মায়ের কি অবস্থা ?

লাবনী: হা ! মা । এই পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে গেছে পরপারে । আমার মায়ের মৃত্যুর সময় কিন্তক এই রাজনীতির মানুষগুলোই একান্ত পাশে ছিলো যার নাম না নিলেই নয় তিনি হল বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক গোলাম রাব্বানি ভাই ।

রাজনৈতিক এবং মিডিয়ায় আছেন কিন্ত এজগতে আসলে নাকি পরিচালক ও নেতাদের কাছে সর্বস্য হারাতে হয় আপনি কি মনে করেন ?

লাবনী: পরিচালক ও নেতাদের কাছে সর্বস্য হারাতে হয় এ কথাতে আমি বিশ্বাসী নই।যে রাজনীতি করে তাকে রাজপথে হাটতে হয় পরিশ্রম করতে হয় আর রাজপথ কখনোও বেঈমানী করে না। আর একটি মানুষের ইচ্ছাশক্তি যদি প্রখর হয়,মনোবল দৃঢ় হয় , পারসোনালিটি ঠিক থাকে এবং যোগ্যতা থাকে তবে সে মিডিয়াতে নিজের অবস্থান করে নিবেই।

আর্টিস্ট তৈরির ক্ষেত্রে টিভি শো কিংবা বিউটি কনটেস্টগুলো কতটা সফল বলে আপনি মনে করেন ?

লাবনী: একজন আর্টিষ্ট তৈরির ক্ষেত্রে বিউটি কনটেস্টগুলো বড় ধরনের একটি প্লাটফর্ম ।

মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন না হওয়ার হতাশা কাজ করে কী ?

লাবনী: মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ান না হওয়ার জন্য তেমন কোন হতাশা নেই। কারন এখান থেকে অনেক কিছু শিখতে পেরেছি যা বাস্তবিক জীবনে কাজে লাগাতে পারবো।

মিডিয়ায় নতুদের ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জের জায়গাটা কোথায় ?

লাবনী: মিডিয়ায় যারা নতুন তাদেরকে বুঝে বুঝে কাজ করা উচিত আমি মনে করি।

অভিনয়ে আপনার আইডল কে ?

লাবনী: আমার অভিনয়ের আইডল হচ্ছে সুবর্ণা মুস্তফা।

সহ অভিনেতাদের মধ্যে আপনি কার সাথে কাজ করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন ?

লাবনী: সহ অভিনেতাদের মধ্যে কাজ করতে ভাল লাগবে বলতে ডিরেক্টর যাকে নিবেন তার সাথেই কাজ করতে পারবো তেমন কোন অভিনেতার নির্দিষ্ট নেই এখন পর্যন্ত।

অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে আমাকে সময় দেওয়ার জন্য।

আপনাকেও ধন্যবাদ ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ