Monday, August 19th, 2019




আত্মহত্যা কি সকল সমস্যার সমাধান?

আত্মহত্যা মহাপাপ এ কথা আমরা সবাই জানি। কিন্তু তারপরও এই প্রবণতা দিন দিন বাড়ছে। আত্মহত্যা মানে নিজকে নিজে ধ্বংস করা। নিজ আত্মাকে চরম কষ্ট ও যন্ত্রণা দেয়া। নিজ হাতে নিজের জীবনের যাবতীয় কর্মকাণ্ডের পরিসমাপ্তি ঘটানো। আমাদের দেশে অনেক নারী-পুরুষ বিশেষত নারীরা জীবন সংগ্রামের পরিবর্তে জীবন থেকে পালিয়ে যাবার জন্য আত্মহত্যার পথ বেছে নিচ্ছে। তুচ্ছ পারিবারিক কলহ, বিদ্যালয় যাওয়ার পথে বখাটেদের উৎপাত, ভালোবাসায় ব্যর্থতা ও প্রতারণা, স্বামীর নির্যাতন-অত্যাচার, যৌতুক সমস্যা, স্বামীর অর্থনৈতিক অক্ষমতা, পারিবারিক অশান্তি, অভাব অনটন ইত্যাদিকে কেন্দ্র করে নারী ও পুরুষরা আত্মহত্যাকে বেছে নিচ্ছে।

সম্প্রতি আত্মহত্যার এই প্রবণতা দেখা যাচ্ছে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পাওয়া যেখানে অনেকের সারা জীবনের স্বপ্ন সেখানে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করেও কেন আত্মহত্যা করছে এসকল মেধাবী শিক্ষার্থীরা? এই প্রবণতা কি জাতির জন্য ভালো লক্ষণ? অবশ্যই এটা আমাদের জন্য অশনি সংকেত। আত্মহত্যা কখনোই কোনো সমস্যার সমাধান নয়। বরং সেটা আত্মহত্যাকারীর পরিবার, দেশ ও জাতির জন্য অনেক কষ্টের।

কোনো পরিবারের সদস্য যখন পাবলিক কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করে তখন তাকে নিয়ে বড় ধরনের স্বপ্ন দেখে সেই পরিবারটি। বিশেষ করে গ্রামের মধ্যবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারের সদস্যদের মধ্যে এই স্বপ্ন দেখার প্রবণতা টি বেশি। কিন্তু যাকে নিয়ে একটি পরিবার স্বপ্ন দেখছে সেই ছেলে বা মেয়েটি যদি কোনো কারণে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয় তাহলে ঐ পরিবারটির কি অবস্থা হবে একবারও ভেবে দেখেছেন?

যে ঢাবিতে চান্স পাওয়া লাখ লাখ শিক্ষার্থীর স্বপ্ন, যে ঢাবিকে বলা হয় দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের রাজধানী। সেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স বিভাগে চান্স পেয়েছিল কুষ্টিয়ার তরুণ হাসান। ভর্তিও হয়েছিলেন নিজের স্বপ্ন পূরণের জন্য। কিন্তু স্বপ্ন আর পূরণ হয়নি, মাঝপথেই তৃতীয় বর্ষে পড়ুয়া তরুণ হোসেন আত্মহত্যা করেছে ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখে।

পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্তিকা বিজ্ঞান বিভাগের ফার্স্টবয় দেবাশীস মণ্ডল অনার্স মাস্টার্স শেষ করেছেন, হয়েছেন ডিপার্টমেন্টের ফার্স্ট। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হতে না পেরে জীবনের কাছে আত্মসমর্পণ করেন এ বছরেরই ১৪ মে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের স্নাতকোত্তর পর্বের শিক্ষার্থী ছিলেন- মো. আদনান। তিনিও হলের নিজ কক্ষে আত্মহত্যা করেছিলেন ১৩ এপ্রিল ২০১৭ তারিখে।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ছাত্র ছিলেন সাব্বির আহাম্মেদ। ৩১তম বিসিএস দিয়ে সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে পুলিশে যোগদানও করেছিলেন এই ছাত্র। কিন্তু কোনো এক অজানা কারণে তিনিও আত্মহত্যার পথ বেছে নেন ২৯ এপ্রিল ২০১৭ তারিখে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র জাকির হোসেন। পরিবারের অভাব অনটন সইতে না পেরে রংপুরের পীরগঞ্জের এই ছাত্রটি আত্মহত্যা করেন এ মাসেরই (অক্টোবর) ১৪ তারিখ।

সর্বশেষ এই তালিকাকে আরও দীর্ঘ করেছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের নাজমুল হাসান নামে আইন বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের এক শিক্ষার্থী। হলের নিজ কক্ষে গলায় ফাঁস দিয়ে সে আত্মহত্যা করে গত শুক্রবার (১৯ অক্টোবর)।

এটা তো মাত্র কয়েকটা উদাহরণ। এমন ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটছে। অহরহ ঘটছে। সকলের কাছে যে মানুষটা সফল, সে হয়তো নিজেই নিজের কাছে পরাজিত হয়ে বসে আছে। সবকিছু পেয়েও হয়তো কিছুই পাওয়া হয়নি, সুখটা তার কাছে অধরাই রয়ে গেছে।

প্রতিবছর এক মিলিয়ন মানুষ এই পথ বেছে নেয়৷ এমনকি যে সব সমাজে আত্মহত্যা বেআইনী বা নিষিদ্ধ সেখানেও মানুষ আত্মহত্যা করে৷ যাদের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতা দেখা দেয় তাদের মনে হয় আর কোনো পথ থাকে না ৷ সেই মুহূর্তে মৃত্যুই তাদের জগতের বর্ণনা হয়ে ওঠে এবং তাদের আত্মহননের এই সুতীব্র ইচ্ছাশক্তিকে কখনওই দমানো যায় না। অথচ ইসলামের দৃষ্টিতে আত্মহত্যা কবীরা গুনাহ। শিরকের পর সবচেয়ে বড় গুনাহ।

যখন মানুষের জ্ঞান-বুদ্ধি ও উপলব্ধি-অনুধাবন শক্তি লোপ পায়, নিজেকে সে অসহায় ও ভরসাহীন ভাবে, তখনই সে আত্মহত্যা করে বসে। মানুষের জীবনের প্রতিটি দিন এক রকম কাটে না। ব্যক্তিগত জীবন, পারিবারিক জীবন, সামাজিক জীবন, রাষ্ট্রীয় জীবন সর্বত্রই পরিবর্তন হতে থাকে। কখনো দিন কাটে সুখে, কখনো কাটে দুঃখে। কখনো আসে সচ্ছলতা। আবার কখনো দেখা দেয় দরিদ্রতা। কখনো থাকে প্রাচুর্য কখনো আবার অভাব-অনটন। কখনো ভোগ করে সুস্থতা কখনো আক্রান্ত হয়ে পড়ে রোগ শোকে। কখনো দেখা দেয় সুদিন, আবার কখনো আসে দুর্ভিক্ষ। কখনো আসে বিজয়, আবার কখনো আসে পরাজয়। কখনো আসে সম্মান আবার কখনো দেখা দেয় লাঞ্ছনা। কিন্তু আত্মহত্যাকারীরা এসব কিছু না ভেবেই নিজেদের দোষী ভেবে করে ফেলে আত্মহত্যা।

আত্মহত্যার এই প্রবণতা কমানোর জন্য সবচেয়ে জরুরি হলো কি কারণে আত্মহত্যা করতে ইচ্ছা করছে সেই সমস্যার কথা অন্য কারও সাথে শেয়ার করা। এটা বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজন, পিতা-মাতা যে কেউ হতে পারে। যাদের আত্মহত্যা করতে ইচ্ছা হয় তাদের একা সব সামলানোর চেষ্টা না করে উচিত অন্যের কাছে সাহায্য চাওয়া ৷ পরিবারের সদস্য বা বন্ধু কিংবা সহকর্মীর সঙ্গে কথা বলে অনেকটা আশ্বস্ত হওয়া যায়। দরকার হলে সাইকোলজিস্ট ও সাইকিয়াট্রিস্ট এর কাছে যেতে হবে।

যে পরিবার অমানবিক কষ্ট করে আমাদের একটা ভাল অবস্থানে নিয়ে আসে। আশার কুঁড়োঘর বাঁধে আমাদেরকে নিয়ে। ভাগ্য পরিবর্তনের স্বপ্ন দেখে আমাদেরকে নিয়ে। আসুন না সেই পরিবারের কথা ভেবে আত্মহত্যার মতো একটা খারাপ কাজকে না বলি। নিজে খুশি থাকি, পরিবার, দেশ ও জাতিকে খুশি রাখি। আমাদের মনে রাখতে হবে আত্মহত্যা কোনো সমস্যার সমাধান নয় বরং এটা আরও নতুন সমস্যার সৃষ্টি করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ